সংস্করণ
Bangla

ফিটফাট ভারত গড়তে তিন তরুণের 'ফিটশো'

YS Bengali
19th Dec 2015
Add to
Shares
0
Comments
Share This
Add to
Shares
0
Comments
Share

আউটডোর গেমস আপনার ভালো লাগে। অংশগ্রহণও করতে চান। কিন্তু খরচের কথা ভেবে পিছিয়ে আসেন। সব আউটডোর গেমস কিন্তু খরচসাপেক্ষ নয়। যেমন ধরুন দৌড় (রানিং) বা সাইকেল চালানো (সাইক্লিং)। একজোড়া রানিং সু, সেফ্‌টি গিয়ার আর একটা সাইকেল থাকলেই চলবে। তা সত্ত্বেও এতে তেমন সাড়া মেলে না। এর একটা সম্ভাব্য কারণ হতে পারে দৌড়নো বা সাইক্লিংয়ের উপযুক্ত পরিবেশ না পাওয়া। আপনি যে উৎসাহিত হবেন, সেটাই নেই। সেই উৎসাহ পেতে পারেন যদি আপনি পাশে পান আপনারই মতো মানুষদের। আরও ভালো হয় যদি বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, উপযুক্ত ট্রেনিং আর একটু সাপোর্ট পাওয়া যায়। সেজন্যই ফিটশো (FITSO)।

‘Fitness Social’, সংক্ষেপে ফিটশো (FITSO)। এমন এক প্ল্যাটফর্ম যেখানে মেলে রানিং ও সাইক্লিং পার্টনার, ট্রেনার, পরামর্শ, ইভেন্টের যাবতীয় খবরাখবর। ফিটশোর লক্ষ্য হল সমাজে একটা হেলদি লাইফস্টাইল গড়ে তোলা। সেজন্য রয়েছে মোবাইল অ্যাপ। এই অ্যাপের মাধ্যমে ইউজাররা প্রয়োজনীয় সব তথ্য পেয়ে যাবেন। ট্রেনারদের যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা, সাফল্য, পারিশ্রমিক সবই জানা যাবে সেখানে। যোগা ট্রেনার, ফিজিওথেরাপিস্ট, ডায়েটিশিয়ানস, ফিটনেস ট্রেনার, ম্যাসিউরদের সঙ্গে আলোচনার জন্য সময় বেছে নিতে পারবেন। আর পছন্দসই ইভেন্টে অংশ নিতে চাইলে 'জয়েন' বাটনে ট্যাপ করলেই হল। এই মুহূর্তে রাজধানী দিল্লিতেই কাজকর্ম চালাচ্ছে ফিটশো। খুব শিগগিরই অন্য শহরেও পরিষেবা মিলবে।


image


Activities: রানিং ও সাইক্লিংয়ের খোঁজখবর মিলবে সহজেই। আয়োজনস্থল, তারিখ, সময় ইত্যাদি জেনে নিতে পারবেন ইউজাররা। যোগদানে ইচ্ছুক হলে আরও তথ্য মিলবে। যোগাযোগ করিয়ে দেওয়া হয় অন্যান্য রানিং, সাইক্লিং পার্টনারদের সঙ্গে।

Events: শহরে হতে চলা ইভেন্টের যাবতীয় খবর মিলবে। কী ধরনের ইভেন্ট রয়েছে, যোগদান করতে চাইলে কত খরচ পড়বে তাও জানিয়ে দেওয়া হয়।

Trainers: ট্রেনারের সঙ্গে ওয়ান-টু-ওয়ান সেশনেরও সুবিধা রয়েছে। যদি কেউ ম্যারাথন, আল্ট্রা-ম্যারাথন, আয়রনম্যানের মতো ইভেন্টে অংশ নিতে চান তার জন্যও বিশেষ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রয়েছে।

Other services: শুধু কোচ নয়, যোগ ব্যায়াম, ফিটনেস, ফিজিওথেরাপি, ম্যাসাজ, নিউট্রিশনের জন্য অভিজ্ঞ প্রফেশন্যালদেরও মিলিয়ে দেবে ফিটশো। সেইসব বিশেষজ্ঞদের প্রোফাইলে গিয়ে ক্লিক করলেই হল। নিমেষেই জেনে যেতে পারবেন তাঁদের যোগ্যতা। চার্জ কত পড়বে তাও দেওয়া থাকে। সবকিছু মিলে গেলে ট্রেনারের উপস্থিতি অনুযায়ী সেশন বুক করে নিলেই চলবে।

In-app content(Posts): রয়েছে অ্যাপ। সেখানে মিলবে রানিং, ডায়েট, ফিটনেস নিয়ে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ। যদি কারোর কোনও প্রশ্ন থাকে, তার উত্তর মেসেজ করে জেনে নেওয়া যেতে পারে।

ফিটশোর তিন কারিগর

ফিটশো গড়ে তোলার মূলে তিনজন। সৌরভ আগরওয়াল, নমন শর্মা আর রাহুল সুরেখা। তিনজনই দিল্লি আইআইটি'র গ্র্যাজুয়েট। ফিটশোতে Technology and Product Head হিসাবে দায়িত্ব নেওয়ার আগে চার বছর Zomato-তে যুক্ত ছিলেন নমন। Marketing and Strategy Head-এর দায়িত্বে থাকা রাহুল একসময় কাজ করেছেন Yepme ও UrbanClap-এ। Flipkart-এ Business Development-এ যুক্ত থাকা সৌরভ সেই দায়িত্ব ছেড়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন এই অ্যাডভেঞ্চার স্পোর্টসে। ২০১৪-তে Full Ironman event সাফল্যের সঙ্গে শেষ করেন সৌরভ। চলতি বছরের এপ্রিলে মাউন্ট এভারেস্ট অভিযানেও অংশ নিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু নেপালে ভূমিকম্পের জন্য অভিযান বাতিল হয়ে যায়। এরপর বিশ্বের কঠিনতম আল্ট্রা-ম্যারাথন বলে পরিচিত ১১১ কিলোমিটার দৌড়ের ‘La Ultra’-তেও সাফল্য পান সৌরভ।

অ্যাডভেঞ্চার স্পোর্টসে তাঁর এই অভিজ্ঞতাই ছড়িয়ে দেওয়ার কথা ভাবেন সৌরভ। গ্রুপ ফিটনেস অ্যাক্টিভিটিজকে আরও প্রচারে নিয়ে আসতে নমন ও রাহুলকে নিয়ে শুরু করেন Jogo. কয়েক সপ্তাহ পরেই তাঁরা Jogo-কে রিব্ৰ্যান্ড করেন FITSO নামে। নাম পরিবর্তন কেন? বিষয়টি ব্যাখ্যা করতে গিয়ে সৌরভ জানালেন, পর্তুগিজ ভাষায় জোগোর অর্থ ‘game’ বা খেলা। সেই নাম নিয়ে দেখা দেয় বিভ্রান্তি। গুগল প্লে স্টোর বিষয়টি বুঝতে না পেরে সব ধরনের মোবাইল গেমসকেই এই ক্যাটেগরিতে এনে ফেলে। ফলে সার্চ ইঞ্জিনে জোগোর অ্যাপ খুঁজে বের করাই কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। টেকনিক্যাল সেই সমস্যা এড়াতেই জোগো পরিবর্তত হয় ফিটশো নামে।

নমন-রাহুল-সৌরভ ছাড়া ফিটশো টিমে রয়েছেন অজিতেশ অভিষেক এবং কৌশল মিশ্রা। ফিটশোতে অ্যানালিটিকস পদে যোগ দেওয়ার আগে KPMG-তে Associate Consultant হিসাবে যুক্ত ছিলেন অজিতেশ। বর্তমানে ফিটশোতে ডিজাইন হেডের দায়িত্বে থাকা কৌশল একসময় যুক্ত ছিলেন Allyzone Softech-এ।


image


ফিটশোর রেভিনিউ মডেল

ফিটশোকে আয়মুখী করে তুলতে কয়েকটি পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ইউজারদের সঙ্গে ট্রেনার ও প্রফেশন্যালদের যোগাযোগ করিয়ে দিলেও তা থেকে কোনও রোজগার হয় না। যেহেতু এখনও এই পরিষেবা বিনামূল্যেই দিয়ে থাকে ফিটশো। সিদ্ধান্ত হয়েছে প্রতিটি বুকিংয়ের জন্য ট্রেনারদের থেকে একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা নেওয়া হবে। অ্যাপে বিজ্ঞাপন, স্পনশর্ড কনটেন্টেও রোজগারের পথ খোঁজা হবে। নিজেদের টাকায় শুরু করলেও ভবিষ্যতে সম্প্রসারণের কথা ভেবে ফান্ডিংয়ের কথা চালাচ্ছেন সৌরভরা। ইউজার ও ট্রেনারদের মধ্যে অর্থের আদানপ্রদানের জন্য পেমেন্ট ইন্ট্রিগেশনের কথাও ভাবা হয়েছে। আর শুধু রানিং-সাইক্লিং নয়, ভবিষ্যতে যে কোনও ধরনের গ্রুপ ফিটনেস অ্যাক্টিভিটিজকেও জুড়তে চায় ফিটশো।

ফিটফাট ভারত

কর্মব্যস্ত জীবনে সুস্থ ও প্রাণবন্ত থাকা সকলেরই কাম্য। নিজেকে 'ফিট' রাখার একটা ভাবনা ক্রমেই দানা বাঁধছে। ভারতেও তাই ফিটনেস সেক্টর আলাদা গুরুত্ব পাচ্ছে। ফিটনেস ট্র্যাকার, ক্যালোরি কাউন্টারের মতো প্রযুক্তি নির্ভর কম খরচের বিভিন্ন সামগ্রী মিলছে। লোকজন এ সম্পর্কে আরও বেশি বেশি করে জানতে চাইছেন। ক্যালোরি মাপার জন্য My fitness pal ও Micromax-এর Healthifyme এখন বাজারে খুবই জনপ্রিয়। ম্যারাথন রানারদের সাহায্য করতে চলতি বছরেই গৌরব জয়সওয়াল ও গুল পানাগ বাজারে এনেছেন কোচিং অ্যাপ ‘First Run’.

ইয়োর স্টোরির সংযোজন

কনটেন্ট, লে-আউট ও ডিজাইনের প্রেক্ষিতে ফিটশো সুপরিকল্পিত ও কার্যকরী একটা অ্যাপ। খুব সহজেই এই অ্যাপ ব্যবহার করা যায়। যোগাযোগ করা যায় ফিটনেস বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে। অ্যাপের ‘Leader board’ ফিচারটি এক অর্থে এক্সেলেন্ট।

ইউজারদের ক্যাটেগরি অনুযায়ী যেভাবে নভিস, ইন্টারমিডিয়েট, অ্যাডভান্সড, এলিট ও মাস্টার লেভেল রাখা হয়েছে সেটাও বেশ ভালো। এর ফলে ইউজাররা সহজেই নিজেকে বুঝে নিতে পারছেন ও সেইভাবে যোগাযোগ গড়ে তুলতে পারছেন।

আয়ের পথ বাড়াতে একটা রেকমেন্ডেশন বা সুপারিশ সেকশনও রাখতে পারে ফিটশো। সেক্ষেত্রে কোনও একজনের শারীরিক বৈশিষ্ট অনুযায়ী তাকে সেই ধরনের জুতো বা হেলদি ফুড সাপ্লিমেন্টের সুপারিশ করা যেতে পারে। যে জিনিসগুলি অনলাইনেই কিনে নিতে পারবেন ইউজাররা। সৌরভ জানিয়েছেন, তাঁরা বিষয়টি অবশ্যই মাথায় রাখবেন।

লেখা -হর্ষমিত মালিয়া

Add to
Shares
0
Comments
Share This
Add to
Shares
0
Comments
Share
Report an issue
Authors

Related Tags