সংস্করণ
Bangla

মোবাইল অ্যাপে তরুণবাবুর ট্যুরিস্ট কোম্পানি

patralekha chandra
20th Jan 2016
Add to
Shares
0
Comments
Share This
Add to
Shares
0
Comments
Share

আপনি কি আলাদিনের আশ্চর্য প্রদীপ দেখেছেন? রূপকথার গল্প কি কখনও সত্যির মতো সত্যি হয়? কিন্তু বর্ধমানের দাঁইহাটের এক ভদ্রলোক হদিস পেয়েছেন আলাদিনের আশ্চর্য প্রদীপের। আর সেটা তাঁর ভিতরই আছে। ঘুমিয়ে থাকে।জাগিয়ে তুললেই সাফল্য আসে। ভদ্রলোকের নাম তরুণ কুমার সাহা। আলাদিনের এই আশ্চর্য প্রদীপটি তাঁর ইচ্ছেশক্তি। 

image


বর্ধমানের দাঁইহাটের তরুণ এখন কলকাতায় থাকেন। এক সময় সামান্য পুঁজি নিয়ে শুরু করেছিলেন তাঁর হোটেলের ব্যবসা। আজ পৌঁছে গেছেন সাফল্যের শিখরে। সিমলা, কলপা, আন্দামান, হিমাচলপ্রদেশ সরবত্রই একাধিক হোটেল চুক্তি ভিত্তিক পরিচালনা করছেন। ২০১৪-য় আন্দামানে হোটেল নেন। চলতি বছরে পুরীতে হোটেল ব্যবসা শুরু করছেন। তার সংস্থা দেবলক পর্যটন ক্ষেত্রে এখন রীতিমত ব্র্যান্ড। নিজস্ব ওয়েব সাইট রয়েছে। শুধু তাই নয় বানিয়ে ফেলেছেন মোবাইল অ্যাপসও।

পথ চলা শুরু ২০০১ এ। বন্ধুদের সঙ্গে কলপায় বেড়াতে গিয়েছিলেন। সেখানে বাঙালি হোটেল না থাকায় খাওয়া দাওয়ার বিস্তর সমস্যা হয়। তখনই মাথায় আসে ভ্রমণ পিপাসু বাঙালির জন্যে হোটেল করার আইডিয়া। যে হোটেলে তারা উঠেছিলেন তার মালিকের সাথে কথা বলে চুক্তি ভিত্তিক হোটেল নেওয়ার পরিকল্পনা করেই ফেললেন। শুরু হল প্রস্তুতি। দেড় লক্ষ টাকায় আটটি রুম লিজ নেওয়ার ব্যবস্থা করলেন। বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়দের কাছ থেকে টাকা ধার নিয়ে নেমে পড়লেন ব্যবসায়।

কলকাতায় বিজ্ঞাপন দিতেই বাঙালি পর্যটকদের চাহিদা বাড়তে লাগলো। চাহিদার সাথে পাল্লা দিয়ে ব্যবসাও বাড়াতে থাকলেন তরুণ। ইতিমধ্যেই শুরুয়াতির সময়ের ধার করা টাকা শোধ করে পুঁজিও অনেক বাড়াতে পেরেছেন। এতদিন টেলিফোনেই হোটেল বুকিং এবং প্যাকেজ ট্যুরের ব্যবসা চলতো। ২০১০ এ লঞ্চ করলেন দেবলক গ্রুপ অফ হোটেল এর ওয়েবসাইট (www.deblokgroupofhotels.com / www.deblokgroupofhotels.in)। ওয়েব সাইট শুরুর পর পর্যটকদের সুবিধা হল। অনলাইনে হোটেল বুকিং এর চাহিদা বেড়ে গেল। সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে আর পিছিয়ে রইলেন না তিনি। ২০১৫ তে চালু করলেন দেবলক অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস।

এখন গোটা বাংলা জুড়ে দেবলক গ্রুপ অফ হোটেল এর এজেন্সি নিয়ে অনেকেই কাজ করে রোজগার করছেন। আর তাঁর কোম্পানিতে প্রায় ৮৭ জনকে রীতিমত চাকরি দিতে পেরেছেন তরুণ এই উদ্য়োগপতি। ২০০১ সালে যে লড়াই শুরু করেছিলেন আজ তা বেশ সফল। সঠিক পরিকল্পনা আর ইচ্ছাশক্তিই তাকে এতদূর পথ চলতে সাহায্য করেছে। আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার তার সাফল্যকে বাড়িয়ে দিয়েছে। ফলে আশ্চর্য প্রদীপের হদিস পেয়ে গেছেন এই তরুণ আলাদিন। তাই তাঁর থেকেও তরুণ উদ্যোগপতিদের জন্যে তাঁর আবেদন আপনারা এগিয়ে যান। ইচ্ছেশক্তির মর্ম বুঝুন। সাফল্য আপনা থেকেই ধরা দেবে।

Add to
Shares
0
Comments
Share This
Add to
Shares
0
Comments
Share
Report an issue
Authors

Related Tags