সংস্করণ
Bangla

পেটুকদের মুশকিল আসান-Fikar Not Foodies

sananda dasgupta
14th May 2016
Add to
Shares
5
Comments
Share This
Add to
Shares
5
Comments
Share

পাড়ার ছোট্টো খাবারের দোকান থেকে একটি পুরোপুরি রেস্তোরাঁ, ফিকর নট ফুডিসের যাত্রাপথটা এরকমই। ২০১০ সালে উত্তর কলকাতায় একটি ছোট খাবারে দোকান দিয়েই শুরু করেছিলেন ফিকর নট ফুডিসের প্রতিষ্ঠাতা সৌরভ সরকার। সৌরভের পড়াশোনা আইএইচএম এ হোটেল ম্যানেজমেন্ট নিয়ে। ছাত্র জীবন থেকেই খাদ্য রসিক সৌরভ, আর নিজের সেই ভাললাগা আরও অনেকের সঙ্গে ভাগ করে নিতে ভালবাসতেন। তখন থেকেই এমন একটা খাবারের দোকানের কথা ভাবতেন যেখানে সেরা স্বাদের খাবার পাওয়া যাবে কিন্তু দাম থাকবে সাধারণের আয়ত্ত্বের মধ্যে। সৌরভ বললেন, “খাবার এমন একটা জিনিস যাতে সকলেরই অধিকার রয়েছে, আমি বরাবরই চাইতাম সকলকেই সেরা স্বাদের অভিজ্ঞতার ভাগ দিতে। নিজে খাদ্যরসিক হওয়ায় বিষয়টা আমার কাছে এক পরম আনন্দের।”

image


পড়াশোনা শেষ করে চাকরিতে ঢোকেন কিন্তু নিজের দোকানের স্বপ্নটা ছিলই, ২০১০ সালে খুলেও ফেলেন নিজের ছোট টেক অ্যাওয়ে ফুড জয়েন্ট। প্রথমদিকের দিনগুলি খুব সহজ ছিল না বলছিলেন সৌরভ, “তখন বয়স কম ছিল, অভিজ্ঞতার অভাব ছিল, আশেপাশের অন্যান্য দোকানই ছিল অনুপ্রেরণা, আর তাদের দেখে কেন জানি না ধারণা হয়েছিল সঠিক দামে ভাল মানের খাবার দিতে পারলে প্রথম দিন থেকেই ক্রেতারা ভীড় জমাতে শুরু করবে। কিন্তু বাস্তবটা যে আসলে এতটা সহজ নয়, প্রথমদিনই সেটা বেশ টের পেয়ে গিয়েছিলাম”। সাশ্রয়ী দামে উন্নত মান ও স্বাদের খাবার বিক্রি করা স্বত্ত্বেও ক্রেতাদরে মন জয় করা সহজ ছিল না। ব্যবসা দাঁড় করাতে সময় লেগেছে অনেকটা। বিভিন্ন ধরণের ক্রেতাদের চাহিদা বুঝে বদলাতে হয়েছে প্রতিদিন। তবে একটা জিনিস সব সময়ই স্থির রেখেছেন সৌরভ, তা হল কোনও পরিস্থিতিতেই খাবারের স্বাদ ও মানের সঙ্গে আপোস নয়।

সৌরভ বলছিলেন, এমন অনেক দিন গেছে যখন আমার কাছে এক সপ্তাহের বাজার করার পয়সা নেই. অ্যাকাউন্টের সব টাকা তুলে দু দিনের বাজার করতে পেরেছি। যদি ঠিক মত ক্রেতা না পাই তৃতীয় দিনের কোনও সংস্থান নেই। তবে এভাবেই ধীরে ধীরে জনপ্রিয়তা বেড়েছে, বেড়েছে ব্যবসা। বছর পাঁচেক এই দোকান চালানোর পর সল্টলেকে একটা গোটা রেস্তোরাঁই খুলে ফেলেন সৌরভ, নাম ফিকর নট ফুডিস।

নিজের লড়াইয়ের দিনগুলির অভিজ্ঞতাকে কখনই ভোলেননা সৌরভ। এখনও যে কোনও দিন সমস্যায় পড়তে পারি, আর তখন ওই দিনগুলির অভিজ্ঞতাই আমাকে সাহস যোগায়, ভরসা দেয়।

“অনেক সময় গেছে যখন সপ্তাহের পর সপ্তাহ বিক্রি হয়নি, ক্ষতির মুখে পড়েছি। হঠাত করেই কোনও কর্মী কাজে এল না, তখন তা সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয়েছে, তবুও এগিয়েছি আর আজ এই জায়গায় পৌঁছতে পেরেছি”, বললেন সৌরভ।

ফিকর নট ফুডিসে বসে খাওয়া বা বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া দুরকম ব্যবস্থাই রয়েছে। মেনুতে রয়েছে চাইনিস, তিব্বতী ও থাই খাবার। আগামী দিনে ফাইন ডাইনিং রেস্টুরেন্ট বানাতে চান সৌরভ, কিন্তু দাম থাকবে সাধারণের আয়ত্বে কারণ সৌরভ মনে করেন খাবার সকলের জন্য। ভাল খাবার খাওয়ার আনন্দ সকলের সঙ্গেই ভাগ করে নিতে চান এই ফুডি.।

Add to
Shares
5
Comments
Share This
Add to
Shares
5
Comments
Share
Report an issue
Authors

Related Tags