সংস্করণ
Bangla

জেনে নিন স্টার্টআপ চালানোর নিয়ম কানুন

2nd Feb 2016
Add to
Shares
0
Comments
Share This
Add to
Shares
0
Comments
Share

মোদির স্টার্টআপ ইন্ডিয়া ঘোষণার পর পরিস্থিতি বদলেছে। শুরুয়াতি সংস্থাগুলিকে খেলবার সুযোগ দেওয়া হবে জানানোর পর ভারতীয় স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম ইতিহাসের এক অভূতপূর্ব অধ্যায়ে দাঁড়িয়ে। খুর ঠুকছে স্টার্টআপ সংস্থাগুলি। প্রতিদিন ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠছে নতুন নতুন স্টার্টআপ। এসময় একটি শুরুয়াতি ব্যবসার প্রতিষ্ঠাতা এবং সংস্থার কর্ণধার হিসেবে আপনি অবশ্যই প্রশংসার যোগ্য। কিন্তু আপনি যে ব্যবসা শুরু করছেন তার প্রতি এবং যাঁরা আপনার অধীনে কর্মরত তাঁদের প্রতি আপনার অনেক দায়িত্ব। জেনে নিন একটি স্টার্টআপ সংস্থা নির্মাণ করার পর তাকে ঠিকঠাক প্রতিপালনের রীতিনীতি।

image


১) Company Incorporation Certificate

কোম্পানির রেজিস্টার্ড অফিসের বাইরের বোর্ডে company incorporation certificate, নিম্নলিখিত তথ্যসহ টাঙানো উচিত:

ক) কোম্পানির নাম।

খ) কোম্পানির রেজিস্টার্ড অফিসের ঠিকানা।

গ) কর্পোরেট আইডেনটিটি নম্বর।

ঘ) টেলিফোন নম্বর এবং ইমেল আইডি।

ঙ) ওয়েবসাইট অ্যাডরেস এবং ফ্যাক্স নম্বর (যদি থাকে)।

উপরিউক্ত সব তথ্য কোম্পানির সব চিঠি,লেটারহেড,মেল,ইনভয়েস সর্বত্র থাকবে। Companies Act, 2013,নিয়ম অনুযায়ী সব ডকুমেন্টে CIN দেওয়া বাধ্যতামূলক। কোনও ভুল হলে ১০০০ টাকা করে প্রতিদিনের হিসেবে ১,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত কোম্পানিকে জরিমানা দিতে হতে পারে। ত্রুটিপূর্ণ কাজ করেছেন এমন অফিসারেরও জরিমানা ধার্য হবে।

২) হিসাবপরীক্ষক নিয়োগ

অজ্ঞানতার জন্য স্টার্টআপরা একটা খুব বড় ভুল করেন। Companies Act 2013-র 139(6) ধারা অনুসারে সরকারি সংস্থা ছাড়া যেকোনো বেসরকারি সংস্থা গঠনের ত্রিশ দিনের মধ্যেই বোর্ড মিটিং এ প্রথম হিসাবপরীক্ষক নিয়োগ করতে হবে। ডিরেক্টররা হিসাবপরীক্ষক নিয়োগে অসমর্থ হলে ৯০ দিনের মধ্যে একটি জেনারেল মিটিং ডেকে সংস্থার সদস্যরা হিসাবপরীক্ষক নিয়োগ করবেন। আপনার কাজ আরও সহজ হয়ে যায় যদি আপনি কর্মরত একজন চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট নিয়োগ করেন,যাঁর হাতে তাঁর কাজের প্রমাণস্বরূপ সার্টিফিকেট রয়েছে। সেক্ষেত্রে কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স মন্ত্রকের ওয়েবসাইটের ADT-1 ফর্ম পূরণ করে জমা দেওয়া দরকার। নিয়ম সঠিকভাবে পালন না করা হলে সংস্থার Companies Act, 2013 এর ১৪৭ ধারা অনুযায়ী ২৫,০০০ থেকে পাঁচ লাখ টাকা অবধি জরিমানা হতে পারে। ভুল কাজ করেছেন এমন সব অফিসারের ১০,০০০ থেকে ১,০০,০০০ অবধি জরিমানা অথবা এক বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে। যদিও কর্তৃপক্ষ বিষয়গুলি নিয়ে খুব কড়া মনোভাব পোষণ করেন না তবুও একজন স্টার্টআপের উচিত নিয়মগুলি সঠিকভাবে পালন করা।

৩) PAN এবং TAN

যেহেতু কোম্পানির একটি আলাদা আইনি পরিচিতি আছে, আয়কর দপ্তরে কোম্পানির যথাযথ রেজিষ্ট্রেশনের জন্য কোম্পানির নিজস্ব PAN এবং TAN অবশ্যই দরকার।

৪) শেয়ার সার্টিফিকেট

কোম্পানি গঠনের দুমাসের মধ্যে Companies Act, 2013 নিয়ম মেনে Memorandum of Association (MOA)-এর প্রতিটি উপভোক্তার মধ্যে শেয়ার সার্টিফিকেট বিলিবন্টন করতে হবে। MOA-র লিখিত চুক্তি অনুযায়ী প্রত্যেক উপভোক্তা চাঁদার টাকা কোম্পানির ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে চেক অথবা নেট ব্যাঙ্কিং মারফৎ জমা দেবেন। আমরা সংস্থাকে উপদেশে বলি,আগে MOA, Articles of Association (AOA) এবং certificate of incorporation দিয়ে কোম্পানির নিজস্ব ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খুলে,তারপর উপভোক্তার চেক জমা করুন। সুতরাং ক্যারেন্ট অ্যাকাউন্ট খোলার পর প্রথম কাজ হবে কোম্পানির সদস্য এবং উপভোক্তার চেক জমা নেওয়া।

৫) সংবিধিবদ্ধ সরকারি খাতপত্র

কোম্পানি তৈরি হওয়ার পর থেকেই সংস্থা একটি নির্দিষ্ট সংবিধিবদ্ধ সরকারি খাতপত্র রক্ষা করবে। এটা শুধুই প্রয়োজনীয়তা নয়,এতে কাজের বিধিবদ্ধ হিসেব রাখাও সহজ হয়।

এগুলি একটি স্টার্টআপ সংস্থাকে বাধাহীনভাবে সাফল্যের পথ দেখানোর কিছু প্রাথমিক নিয়ম। আরও অনেক বাধ্যতামূলক রীতিনীতি আছে যা নিয়ম মেনে সময়মতো নজর না করলে একজন স্টার্টআপ সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে আপনি সমস্যায় পড়তে পারেন।

Add to
Shares
0
Comments
Share This
Add to
Shares
0
Comments
Share
Report an issue
Authors

Related Tags